স্মরণ : দ্যুতি ছড়ানো সাংবাদিকতার পথিকৃৎ গোলাম সারওয়ার

সাতকাহন ডেস্ক

 সত্যের সন্ধানে নির্ভীক দেশের অন্যতম পাঠক নন্দিত জাতীয় দৈনিক যুগান্তরের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ (১৩ আগস্ট)। ২০১৮ সালের ১৩ আগস্ট ৭৫ বছর বয়সে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

মৃত্যুর আগে তিনি দৈনিক সমকালের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছিলেন। সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য তিনি পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় সম্মাননা একুশে পদক।

 দেশের সাংবাদিকতার ইতিহাসে সাহসী ও দ্যুতি ছড়ানো সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, নতুন ও অগ্রসর ধারার সংবাদ ব্যক্তিত্ব গোলাম সারওয়ার ষাটের দশকে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন।

 টানা পাঁচ দশকের বেশি সময় তিনি এ পেশায় মেধা-মনন, তথ্যনিষ্ঠতা , পেশাদারিত্ব, দায়িত্বশীলতা এবং অসাম্প্রদায়িক বাঙালি চেতনার নিরবচ্ছিন্ন চর্চার মাধ্যমে নিজেকে এবং বাংলাদেশের সংবাদপত্রকে এক অনন্য উচ্চতায় এনে দাঁড় করিয়েছিলেন ।

 বাবা মরহুম গোলাম কুদ্দুস মোল্লা ও মা মরহুম সিঁতারা বেগমের জ্যেষ্ঠ সন্তান গোলাম সারওয়ার বাংলাদেশের মুক্তচিন্তা, প্রগতিশীল মূল্যবোধ আর মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আজীবন সোচ্চার ভূমিকা পালন করে গেছেন ।

 সাংবাদিকতা জীবনে তিনি তিন দশকেরও অধিক সময় দৈনিক ইত্তেফাকের বার্তা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন । গোলাম সারওয়ার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা সাহিত্যে সম্মানসহ স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

 ছাত্র জীবনে ১৯৬২ সালে তিনি চট্টগ্রামের বিপুল জনপ্রিয় দৈনিক আজাদীর বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা হিসেবে সাংবাদিকতা পেশায় প্রবেশ করেন তিনি।

 একই বছর দৈনিক সংবাদের সহসম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পর্যন্ত দৈনিক সংবাদে কর্মরত ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধেও তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছিলেন। সংবাদপত্রের "সো উইন্ডো" অর্থাৎ "গেটআপ-মেকআপ"র জন্য তিনি ছিলেন অতুলনীয়। সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যারা পত্রিকার " লে-আউট" পর্যন্ত সংবাদপত্র অফিসে কাটাতেন- তিনি ছিলেন তাদের অন্যতম।